সুবার্তা সোশ্যাল এন্টারপ্রাইজ লিমিটেড (SSEL)

২০১৯ সালের জানুয়ারি মাসে কোম্পানী আইনে ‘সুবার্তা সোশ্যাল এন্টারপ্রাইজ প্রাইভেট লিমিটেড’ কোম্পানী হিসেবে নিবন্ধিত, যার ৯৯.৮০% শেয়ার হোল্ডার সুবার্তা ট্রাস্ট। সুবার্তা ট্রাস্টের উদ্যোগে এই কোম্পানী প্রতিষ্ঠিত হয়।

২০০০ সাল থেকে সুবার্তার উদ্যোগক্তা শেলীনা আক্তার মানবযত্নাবলী নিয়ে অপ্রাতিষ্ঠানিকভাবে ও প্রাতিষ্ঠানিক দুভাবেই কাজ করছিলেন। একই সাথে বিষমুক্ত ও রাসায়নিক সারমুক্ত খাদ্য পণ্য উৎপাদন ও বিপণন প্রচেষ্টার মাধ্যমে সীমিত আকারে তখন থেকেই মানিকগঞ্জ জেলায় কাজ শুরু হয় এবং ঢাকার বেইলি রোডে একটি আউটলেটে নগরবাসীর জন্য বিক্রয় চালু হয়। এছাড়া উদ্যক্তার নিজস্ব উদ্যোগে গ্রামীণ নারীদের কর্ম সংস্থানের জন্য ‘আকর’ নামে হস্তশিল্প উৎপাদন ও বিপননের কাজ চলমান থাকে।

সুবার্তা ট্রাস্ট ২০১০ সালে ট্রাস্ট এক্ট এ নিবন্ধিত হয়। ঐ সালেই ক্রমবর্ধমান ঝুকিপূর্ন প্রবীণ নাগরিক ও বিভিন্ন সংকটগ্রস্ত (শারীরিক, মানষিক প্রতিবন্ধী, অটিস্টিক, লং টার্ম ইল, পঙ্গু) মানুষদের নিরাপত্তা ও মর্যাদার জন্য প্রথমবারের মতো ঢাকা ও সাভারে একসাথে সমন্বিত সেবা কেন্দ্র চালু করা হয়।

সুবার্তা ২০১২ সালে নেত্রকোণা জেলার দূর্গাপূরে ‘কেয়ারগিভার প্রশিক্ষণ’ অনুষ্ঠান উদ্বোধন করে। তারই ধারাবাহিকতায় দীর্ঘ সময় ধরে কেয়ারগিভার পেশাকে সমাজে প্রতিষ্ঠিত করে তুলতে আপ্রাণ চেষ্ঠা করা হয়, যার প্রতিফলন ঘটে ২০১৮ সালে ‘কেয়ারগিভার একটি সম্মানজক ও লাভজনক পেশা’ এই উদ্দেশ্য সামনে রেখে UNCDF (United Nations Capital Development Fund) এ প্রপোজাল জমা দেয়ার মাধ্যমে। ২০১৯ সালের জানুয়ারি মাসে বৃহত্তর সামাজিক ব্যবসার উদ্দেশ্যে ‘সুবার্তা ট্রাস্ট’ কোম্পানি ‘সুবার্তা সোশ্যাল এন্টারপ্রাইজ লিমিটেড’ গঠন করে। এই কোম্পানির অধীনে ‘স্পেশালাইজড জেরিয়েট্রিক কেয়ার ইন্সটিটিউট’ স্থাপন করা হয়েছে।

সুবার্তা ট্রাস্টের উদ্যোক্তা ও সাধারণ সম্পাদক শেলীনা আক্তার কোম্পানীর ব্যবস্থাপনা পরিচালকের ভূমিকা পালন করছেন; যিনি ২০০০ সালের ডেইলী স্টার, ডি.এইচ.এল, মাইডাস, প্রবীণ হিতৈষী সংঘ থেকে জরাসাস্থ্যে অব্দানের জন্য, ২০১৫ সালে অশোকা ফেলো, ১০১৯ সালে মাইডাসের শ্রেষ্ঠ উদ্যোক্তাসহ অন্যান্য উদ্যোক্তার পদক পেয়েছেন।

অবজেকটিভ

  • চাহিদা অনুযায়ী জেরিয়াট্রিক কেয়ারগিভার প্রশিক্ষণ এবং প্রাথমিক থেকে স্নাতক স্তর পর্যন্ত সংক্ষিপ্ত কোর্স বা প্রশিক্ষণ, বিশ্বমানের বৈজ্ঞানিক পরিচর্যা প্রশিক্ষণ, প্রচলিত পরিচর্যা-প্রযুক্তি, বিদেশী ভাষা কোর্সের পাশাপাশি বই, ম্যাগাজিন পাবলিশ করা, কম্পিউটার প্রশিক্ষণ এবং অংশীদারিত্ব বা অন্য উপায়ে প্রশিক্ষণ কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করা।

  • প্রশিক্ষিত মানবসম্পদ বাজারজাতকরণ এবং লিংক বুথ প্রতিষ্ঠা এবং তাদের সুযোগসুবিধা তৈরি করতে ঐতিহ্যবাহী পরিচর্যা-সেবা নারীদের থেকে কেয়ার-শিল্পে রূপান্তর করা।

  • প্রবীণদের জন্য আবাসন সহায়তার জন্য সারাদেশে কেয়ার সেন্টার এবং কেয়ার ল্যাব সংযুক্ত বিশেষ যত্নের আবাসন তৈরি ও বিক্রয় এবং সংকটগ্রস্ত সমাজের জন্য প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, ছাত্রাবাস, ডে কেয়ার, বিশেষায়িত বাড়ি এবং পুনর্বাসন কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করা।

  • প্রবীণ এবং সংকটগ্রস্ত ব্যক্তিদের জন্য বিশেষ যত্নের উপযুক্ত পরিবেশ সরবরাহের জন্য, সমন্বিত সেবা কেন্দ্র এবং প্রাথমিক ও উচ্চ-স্তরের কেয়ার ল্যাব (মানসিক পরামর্শ, জিম, পুষ্টি এবং আরও অনেকগুলি সহ) বিশ্বব্যাপী এবং চিকিত্সা বহির্ভূত সেবা সরবরাহ এবং জেরিয়্যাট্রিক স্বাস্থ্য সেবা ও বিশেষ স্বাস্থ্য সেবার জন্য প্রকল্পগুলি বাস্তবায়ন করা

  • কৃষি পণ্য উত্পাদন, প্রক্রিয়াজাতকরণ, উচ্চমানের ফসল, নার্সারি, ছাদ বাগান, দুগ্ধ, ফিশারি, মাশরুম, পোল্ট্রি এবং আরও অনেক পুষ্টিজাত পণ্য উৎপাদন করা, জৈব সার ও কীটনাশক বিক্রি করা এবং সার ব্যাংক তৈরী করা, স্থানীয় কৃষক বাজার তৈরী করা, কৃষি পণ্য সম্পর্কিত বাজার তৈরি করে, সমবায় বাজার, অপ্রচলিত পণ্যের দেশের বাজার তৈরি করা এবং স্থানান্তর ও বিপণনের জন্য বিশেষ নকশাযুক্ত পরিবহন তৈরী করা এবং বিক্রয় কেন্দ্র উন্মুক্ত ও তৈরী করা।

  • প্রবাসী বাংলাদেশী, প্রবীণ এবং সংকটগ্রস্ত ব্যক্তিদের পক্ষে সম্পত্তি রক্ষার ব্যবস্থা করা। ইকো ট্যুরিজম এবং রিসর্ট প্রকল্প প্রতিষ্ঠা করা। প্রবীণ এবং সংকটগ্রস্ত ব্যক্তিদের জন্য পণ্য বিক্রয়, পণ্য আমদানি-রপ্তানি সেবা প্রয়োজনীয় পণ্য উত্পাদন করুন। শিল্প ও কারুশিল্পের প্রশিক্ষণ / কর্মশালা, সম্প্রদায়ভিত্তিক বাণিজ্যিক সংগীত ও নাটক, নারীর অংশগ্রহণ ও মালিকানার সাথে সামাজিক ব্যবসায়ের ক্ষেত্রে সোলার লাইট সেটআপ এবং বিনিয়োগ।

  • বিশেষ আবাসন প্রকল্প, সদস্যদের অর্থনৈতিক ক্রিয়াকলাপ, পিতামাতার সহায়তার জন্য পরিকল্পনা, যত্ন প্রশিক্ষণ আমানত স্কিম এবং প্রবীণ এবং চ্যালেঞ্জিত ব্যক্তিদের জন্য তাদের আর্থিক সুবিধার জন্য অন্যান্য স্কিম সরবরাহ করা।

  • ব্যবসায়ের উদ্দেশ্য অর্জনের জন্য কোম্পানি অংশীদারি, যৌথ উদ্যোগে প্রবেশ করতে পারে বা অন্য যে কোনও সংস্থার সাথে সম্মিলিত হতে পারে এবং ব্যাংক / অন্যান্য আর্থিক সংস্থাগুলি থেকে এমনভাবে ঋণ গ্রহণ করতে পারে যা সংস্থা উপযুক্ত মনে করে।

  • কোন লোন বা ক্রেডিট ফেসিলিটি নেয়ার জন্য যে কোনও সহযোগী সংস্থা বা সংস্থাগুলি এবং/বা তৃতীয় পক্ষকে প্রদানের জন্য জামানত হিসাবে সংস্থার সম্পত্তি বন্ধক রাখা এবং এই জাতীয় সহযোগী সংস্থা বা সংস্থাগুলি এবং / বা তৃতীয় পক্ষের সুরক্ষার দায়বদ্ধতার গ্যারান্টি দেওয়া।

ভিষণ

আমরা এমন একটি সমাজ দেখতে চাই যেখানে সকল সংকটগ্রস্ত মানুষ তাদের দুঃসময়ে নিজেকে নিরাপদ ভাবতে পারে।

মিশন

সংকটগ্রস্ত মানুষকে তাদের নিরাপদ পৃথিবী গড়ে দিতে সেবাবিদ্যার প্রচলন, পেশাদার জনশক্তির মাধ্যমে সেবা পদ্ধতি স্থাপন করা, স্পেশাল হাউজিং তৈরী করা, সেবা অর্থায়ন এবং খাদ্য নিরাপত্তাসহ বিবিধ এন্টারপ্রাইজের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটিকে শক্তিশালী করা।

বর্তমান কার্যক্রমসমূহ

  1. স্পেশালাইজড জেরিয়েট্রিক কেয়ার ইন্সটিটিউট’ (SGCI) – দেশে এই প্রথমবারের মতো সোশ্যাল এন্টারপ্রাইজ হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হতে যাচ্ছে মানবসেবা কর্মী প্রশিক্ষণ কেন্দ্রটি, যেখানে একটি সমন্বিত মানব সেবা পদ্ধতি রয়েছে। ‘সুবার্তা ট্রাস্টের’ এর স্বপলোক পিসভ্যালি ২ সংলগ্ন স্থানে ছয় তলা বিশিষ্ট ভবনটি নির্মাধীন। এখানে স্বয়ংসম্পূর্ণ সেবা কর্মী প্রশিক্ষণ, প্রশিক্ষণার্থীদের বিশেষ আবাসিক হোস্টেল সুবিধা এবং বিশেষ প্রবীণদের জন্য দীর্ঘমেয়াদী সেবা ও মানব যত্নাবলী গবেষণা কেন্দ্র থাকছে। এখানে ‘United Nations Capital Development Funds’ এর সহযোগিতা রয়েছে।
  2. সুশক্তি (পেশাদার দক্ষ জনশক্তি বিনিয়োগ প্রকল্প)– এই ব্যবস্থাপনায় সেবা কর্মীরা আউটডোর (ব্যক্তির বাসস্থান ও বিভিন্ন কার্যালয়ে) সেবা প্রদান করে থাকেন। বিভিন্ন ধরনের ব্যক্তিকে (জেরিয়েট্রিক, পেলিয়েটিভ, অটিস্টিক, মানসিক, দীর্ঘ মেয়াদী, শিশুযত্ন) সকল ধরণের সেবা দিতে কোম্পানি কাজ করছে এবং এই সেবা সরবরাহ করে সেবা মূল্য প্রাপ্তি নিশ্চিত করার কাজ সুশক্তি করে থাকে। সুশক্তি এর কেয়ারগিভারদের দীর্ঘমেয়াদী শিক্ষা কার্জক্রম রয়েছে এবং ভবিষ্যতে আন্তর্জাতিক বাজারে অংশগ্রহণের সুযোগ সষ্টি হবে।
  3. খাঁটি কৃষি– সিঙ্গাইর এর স্বপলোক পিসভ্যালি ২ সংলগ্ন স্থানে প্রবীণ সেবা ছাড়াও অর্গানিক, ফ্রেশ ফুডের বিষ মুক্ত কৃষি কার্যক্রম উদ্যোক্তাদের অধীনে রয়েছে। এখানে ৭ জন উদ্যোক্তা কাজ কৃষিপণ্য উদপাদন ও প্রক্রিয়াজাত করে থাকেন, তাদের সাথে আরো ৯০ জন কন্টাক্ট ফার্মার জড়িত আছেন। SSEL কৃষক ও উদ্যোক্তাদের সরকারী উদ্যোগের সাথে সম্পৃক্ত করে, প্রশিক্ষণ দেয়, জমি ভাড়া করে দেয় ও কৃষি পণ্য বাজারজাত করে থাকে। ইতিমধ্যে সরকারী উদ্যোগে ‘উত্তম কৃষি পরিচর্যা’ প্রকল্পে ঢাকায় সেচ ভবনে ‘কৃষকের বাজার’ এ সপ্তাহে ২ দিন কৃষি পণ্য বাজারজাত করছে এবং SSEL এর প্রধান অফিস কার্যালয় একটি বিক্রয়কেন্দ্র চালু করেছে। ৭ জন উদ্যোক্তাকে পূর্ণ সহযোগিতার মাধ্যমে কৃষিকে অগ্রসর করা হবে, যেখানে থাকবে কৃষিপণ্য উতপাদন ও প্রক্রিয়াজাত, ডেইরি ও দুদ্ধজাত পন্য উতপাদন ও প্রক্রিয়াজাত, ফিসারি, অর্গানিক সার উৎপাদন ও ফল বাগান রয়েছে। সুবার্তা সোশ্যাল এন্টারপ্রাইজ কৃষক ও উদ্যোক্তাদের সহায়তা প্রদানের মাধ্যমে কৃষি ও কৃষিস পন্য রপ্তানীর মাধ্যমে উন্নয়ন ঘটাবে। আগামী ৩ বছরে আশা করা যাচ্ছে যে, এটি একটি সয়ংসম্পূর্ণ কোম্পানি হয়ে কৃষি উদ্যোক্তাদের আরো লাভবান করতে পারবে।

বোর্ড মেম্বার

‘সুবার্তা ট্রাস্টের’ মনোনীত ৫জন বোর্ড মেম্বার দ্বারা এই কোম্পানির কার্যক্রম পরিচালিত হয়।
প্রফেসর আব্দুল্লাহ আবু সায়ীদ
প্রফেসর আব্দুল্লাহ আবু সায়ীদ চেয়ারম্যান
শেলীনা আক্তার
শেলীনা আক্তারব্যবস্থাপনা পরিচালক
শিব নারায়ন কৈরী
শিব নারায়ন কৈরী
খালীদ হাসান
খালীদ হাসান
শিরিন জাহাঙ্গীর
শিরিন জাহাঙ্গীর

আপনি অথবা আপনার পরিচিত কেউ যদি সামাজিক ব্যবসায় জড়িত হতে চান/চায় তাহলে আজই যোগাযোগ করুন।

সুবার্তা সোশ্যাল এন্টারপ্রাইজ

আপনি অথবা আপনার পরিচিত কেউ যদি সামাজিক ব্যবসায় জড়িত হতে চান/চায় তাহলে আজই যোগাযোগ করুন।

হটলাইন: +৮৮০১৭০১২৯৪৩৫০